21 January 2017
g+ tw Chapaibarta Faceook Page
Chapaibarta.com

জন্মদিনেও পুরনো চেহারায় ছাত্রলীগ

Published:  5 January 2017
জন্মদিনেও পুরনো চেহারায় ছাত্রলীগ

 বার্তা ডেস্কঃ সংগঠনের ৬৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর দিনও গতকাল বুধবার ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা সংঘর্ষে জড়িয়েছে। ঠাকুরগাঁও ও পটুয়াখালীর গলাচিপায় সংঘর্ষে ১৩ জন আহত হয়েছে। আরো কয়েকটি জেলায় দ্বন্দ্বের কারণে বিভক্ত কর্মসূচি পালনের খবর পাওয়া গেছে। অন্যান্য জেলা-উপজেলায় শান্তিপূর্ণভাবে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত হয়। এ উপলক্ষে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দেওয়া, শোভাযাত্রা, কেক কাটা, আলোচনা সভা, শুভেচ্ছা বিনিময় প্রভৃতি কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। বক্তারা বলেন, স্বাধীনতা আন্দোলন থেকে শুরু করে বাংলাদেশের প্রতিটি অর্জনে ছাত্রলীগ অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে। অতীতের মতোই তারা দেশ ও জাতির উন্নয়নকাজে বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখবে। স্বাধীনতাবিরোধী চক্রের ষড়যন্ত্র প্রতিহত করতে সব সময় প্রস্তুত আছে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। ভিশন ২০২১ বাস্তবায়নে আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে সব নেতাকর্মীকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার আহ্বান জানান বক্তারা। নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর :

ঠাকুরগাঁও : ঠাকুরগাঁও শহরে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন উপলক্ষে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপে ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে অন্তত তিনজন আহত হয়। জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাদেক কুরাইশিসহ কয়েকজনকে লাঞ্ছিত করা হয়। পাঁচ রাউন্ড কাঁদানে গ্যাসের সেল ও ছয় রাউন্ড রাবার বুলেট ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে পুলিশ। সূত্র জানায়, দুপুর দেড়টার দিকে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ বহিষ্কৃত জেলা ছাত্রলীগ নেতা মিজান গ্রুপের সদস্যরা লাঠিসোঁটা, রামদা ও ছুরি নিয়ে জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয় দখলে নেয়। পরে তারা প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর শোভাযাত্রা বের করার প্রস্তুতি নেয়। এ সময় শহরের বলাকা সিনেমা হলের সামনে থেকে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ অনুমোদিত জেলা ছাত্রলীগ সদস্যরা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর শোভাযাত্রা করে শহরের চৌরাস্তার দিকে গেলে উভয় গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। শহরের প্রাণকেন্দ্র চৌরাস্তার দোকানপাট ও যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাদেক কুরাইশি, সহসভাপতি মাহবুবুর রহমান খোকন, মকবুল হোসেন বাবু ও সদর উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি অরুনাংশু দত্ত টিটোসহ অন্য নেতারা সংঘর্ষ ঠেকানোর চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন। ঘণ্টাব্যাপী ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ায় উভয় পক্ষের অন্তত তিনজন আহত হয়।

সাদেক কুরাইশি বলেন, ‘জেলা ছাত্রলীগের কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে দীর্ঘদিন ধরে ছাত্রনেতাদের মধ্যে মতবিরোধ দেখা দিয়েছে। দুই গ্রুপের বিরোধের সমাধানের জন্য কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতাদের কয়েকবার জানানো হলেও তাঁরা কোনো পদক্ষেপ নেননি। সংঘর্ষ ঠেকাতে তিনি জেলা নেতাদের নিয়ে অনেক চেষ্টা করেন। কিন্তু উভয় পক্ষই উত্তেজিত থাকায় তা সম্ভব হয়নি। দলের ভাবমূর্তি অক্ষুণ্ন রাখতে এসব বিষয়ে জেলা কমিটিতে আলোচনার মাধ্যমে সমাধানের ব্যবস্থা করা হবে। ’

পুলিশ সুপার ফারহাত আহমেদ বলেন, প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের নেতাদের ভিন্ন ভিন্ন সময় শোভাযাত্রা বের করার কথা ছিল। তবু অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটল। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। সংঘর্ষ এড়াতে শহরের বিভিন্ন এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

পটুয়াখালী : নানা আয়োজনে পটুয়াখালীতে ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত হয়। সকালে শহরের পিডিএস মাঠ থেকে একটি শোভাযাত্রা বের হয়ে সদর রোডে দলীয় কার্যালয়ে গিয়ে শেষ হয়। এর আগে পিডিএস মাঠে জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি নাসির উদ্দিন হাওলাদারের সভাপতিত্বে বক্তব্য দেন মো. শাহজাহান মিয়া, লুত্ফন নেসা, খান মোশাররফ হোসেন, ডা. শফিকুল ইসলাম ও তারিকুজ্জামান মনি প্রমুখ। এদিকে গলাচিপা শহরে সকালে ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে চেয়ারে বসা নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষে ১০ জন আহত হয়েছে। পরে পুলিশ লাঠিপেটা করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নেয়। সূত্র জানায়, পৌরমঞ্চে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সভা শুরু হলে গলাচিপা কলেজ ছাত্রলীগকর্মী বাপ্পি ও শাকিলের মধ্যে চেয়ারে বসা নিয়ে হাতাহাতি হয়। একপর্যায়ে দুই পক্ষের কর্মীরা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। তখন ভাঙচুর করা হয় চেয়ার।

সুনামগঞ্জ : ছয় ভাগে বিভক্ত হয়ে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করে সুনামগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগ। দুপুরে শহরের উকিলপাড়া থেকে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রফিক আহমদ চৌধুরীর নেতৃত্বে শহরে আনন্দ র‌্যালি বের হয়। পরে আলফাত স্কয়ারে কেক কাটা হয়। জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ফজলে রাব্বি স্মরণ গ্রুপ বিকেল ৩টায় শহরের পুরনো বাসস্ট্যান্ড থেকে আনন্দ মিছিল করে শহীদ মিনারে গিয়ে কেক কাটে। এ ছাড়া জেলা ছাত্রলীগ নেতা আরিফ উল আলম, জিসান এনায়েত রেজা চৌধুরী, দিপঙ্কর কান্তি দে ও হাবীব আল হাসান তপু পৃথকভাবে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করেন।

মুন্সীগঞ্জ : প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে শ্রীনগরের সরকারি শ্রীনগর কলেজে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের পাল্টাপাল্টি কর্মসূচিতে উত্তেজনা ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে সকালে। এর আগে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি গোলাম সারোয়ার কবীর সমর্থিত ছাত্রলীগের জাকির-লিমন গ্রুপ ও মুন্সীগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য সুকুমার রঞ্জন ঘোষ সমর্থিত আজিম-রাব্বি গ্রুপ একই স্থানে সমাবেশের ডাক দেয়। সূত্র জানায়, সকাল থেকে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপ আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে কলেজ ক্যাম্পাসে জড়ো হয়ে মহড়া দিতে থাকে। সকাল ১১টার দিকে দুই গ্রুপ মুখোমুখি অবস্থান নেয়। এ সময় আজিম-রাব্বি গ্রুপের সঙ্গে উপজেলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও অন্য অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মী এবং জাকির-লিমন গ্রুপের সঙ্গে উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি জিঠু ও সাধারণ সম্পাদক পনির যোগ দেন। এতে ক্যাম্পাসে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। শ্রীনগর থানার ৫০ পুলিশ সদস্য দুই পক্ষের মাঝামাঝি অবস্থান নিয়ে ব্যারিকেড তৈরি করে। ব্যারিকেড ভেঙে একপর্যায়ে দুই পক্ষ হাতাহাতিতে জড়ায়। পরে পুলিশ ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেনের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়। এ সময় জাকির-লিমন গ্রুপ ক্যাম্পাস ত্যাগ করে শ্রীনগর বাজারে মিছিল করে। এ ঘটনায় ওই এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করে। যেকোনো সময় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কা করা হচ্ছে। এদিকে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে মুন্সীগঞ্জ জেলা ও লৌহজং ছাত্রলীগ নানা কর্মসূচি পালন করে।
সূত্রঃ কালেরকন্ঠ।।



সর্বশেষ খবর