25 June 2017
g+ tw Chapaibarta Faceook Page
Chapaibarta.com


ডায়াবেটিস নিরাময়ে স্টেভিয়া

Published:  
ডায়াবেটিস নিরাময়ে স্টেভিয়া

নিউজ ডেস্কঃ গাছটির আদিবাস প্যারাগুয়েতে। পরে আমেরিকা, চীন, কানাডা, কোরিয়া, ব্রাজিল, থাইল্যান্ড মেক্সিকোসহ আরও অনেক দেশে এর চাষ শুরু হয়েছে। এটির পাতা খুবই মিষ্টি, যা চিনির চেয়ে ৫০ গুণ বেশি মিষ্টি। গাছটির শুকনো পাতা গুঁড়া করে ব্যবহার হয়। এটি ডায়াবেটিসের কোনো ক্ষতি করে না, বরং কমতে সাহায্য করে। জাপান তাদের মোট চাহিদার ৪০ শতাংশ চিনি এ স্টেভিয়া বা চিনিগাছ থেকে সংগ্রহ করে। আমাদের দেশে সম্প্রতি ব্র্যাক নার্সারি গাজীপুরে বাণিজ্যিকভাবে চাষের জন্য টিস্যু কালচারের মাধ্যমে চারা উৎপাদন শুরু করেছে। সারা বিশ্বে ডায়াবেটিস প্রতিরোধক ও চিনির বিকল্প হিসেবে স্টেভিয়া জনপ্রিয়। স্টেভিয়া ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রেখে অগ্ন্যাশয় থেকে ইনসুলিন নিঃসরণে সহায়তা করে। গাছটি উচ্চরক্তচাপ প্রতিরোধ করে শরীরের সুস্থতা বজায় রাখে।

ব্রাজিলের অধ্যাপক সিলভিয়ো ক্লাউডিও দা কস্তা মনে করেন, স্টেভিয়া ভোজ্যপণ্যের বাজারে এক বিপ্লব আনতে পারে। তিনি বলেন, ২৫ বছর ধরে বিষয়টি নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করছি আমি। এটি একটি প্রাকৃতিক পদার্থ যাতে ক্যালোরি নেই, উচ্চরক্তচাপ ও ব্লাডসুগার নিয়ন্ত্রণ করে। যকৃত ও প্লীহায় পুষ্টি সরবরাহ করে। ত্বক ও দাঁতের ক্ষয়রোধসহ খাবার হজমে সহায়তা করে। চিনির বিকল্প হিসেবে সবাই খেতে পারেন। এটি সম্পূর্ণ নিরাপদ। এর পাতা সবুজ ও শুকনো চিবিয়ে কিংবা চায়ের সঙ্গে মিশিয়ে খাওয়া যায়। স্টেভিয়ার পাতা শুকিয়ে গুঁড়া করে বোতলে সংরক্ষণ করা যায়। অনেকে পানের সঙ্গে মিষ্টি জর্দ্দার পরিবর্তে স্টেভিয়া গুঁড়া করে ব্যবহার করেন। বর্তমানে আমাদের দেশে স্টেভিয়ার চাহিদা বাড়ছে। তবে বিদেশে এর অনেক বড় বাজার রয়েছে। বিশেষজ্ঞরা জানান, স্টেভিয়া চাষ করে বছরে ৪ লাখ থেকে ৫ লাখ টাকা আয় করা সম্ভব।আলোকিত বাংলাদেশ।