25 February 2017
g+ tw Chapaibarta Faceook Page
Chapaibarta.com
ভালোবাসা ছাড়া পৃথিবীর সব কাজ মেশিন দিয়ে করানো সম্ভব!

ভালোবাসা ছাড়া পৃথিবীর সব কাজ মেশিন দিয়ে করানো সম্ভব!

রাখী নাহিদ (ফেসবুক স্ট্যাটাস থেকে)।। পৃথিবীর কোনো প্রাণী কি এতো খরচ করে,ঢাকঢোল বাজিয়ে বিয়ে এইটা ভেবে করে যে সে একদিন ডিভোর্স করবে?? করে না!! কিন্তু তবুও আজকাল ডিভোর্স,সেপারেশন এর হার আশংকাজনক ভাবে বেশি!! বিবাহ বিচ্ছেদ হয়েছে এমন নারী এবং পুরুষকে যদি জিজ্ঞেস করেন – ভাই,প্রথম ছয়মাস দেখে তো মনে হয়েছে আপনারা টয়লেটেও একসাথে যান,হঠাৎ এমন কি হলো যে এক ছাদের নিচেও থাকতে পারলেন না!!

বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই কিছু গৎবাঁধা উত্তর পাওয়া যাবে,যেমন

– ও আমাকে মেন্টাল/ফিজিক্যাল টর্চার করে
– ও সংসার চালাতে পারেনা
– স্বামী টাকা পয়সা দেয় না
– স্ত্রী রাঁধতে পারে না
– আমি বাচ্চা চাই, সে চায়না
– স্বামী মেয়ে দেখলে গায়ের উপর পরে যায়
– স্ত্রীর চালচলন ভালো না

ইত্যাদি ইত্যাদি!!ডিভোর্সের জন্য যখন কোর্টে কারণ দেখাতে হয় তখন ৮০% মানুষ এই কথাগুলোই বলে!!

কিন্তু সত্যি কি এগুলো কারণ যথেষ্ট দুইজন মানুষের পরস্পরকে ছেড়ে চলে যাবার জন্য??

না,কারণ এগুলো কোনো কারণই না!!এগুলো হলো রোগের উপসর্গ বা সিম্পটম!!রোগ টা আরো বিশাল!! রোগের নাম “অদ্ভুত ভালোবাসাহীনতায় ভুগছি”!!

পৃথিবীর আর কোনো কারণেই মানুষ আরেকজন মানুষকে ছেড়ে চলে যায় না, যদি না তাদের মধ্যে একমাত্র ভালোবাসার অভাব হয়!! কিন্তু বিবাহ বিচ্ছেদের মোকদ্দমা করতে যেয়ে আজপর্যন্ত কোনো নরনারী বলে নাই- আমি তাকে আর ভালোবাসিনা তাই আমি ডিভোর্স চাই!!

বলবেই বা কিভাবে আমার সমাজ ব্যবস্থা বিচার ব্যবস্থাও রোগের উপসর্গ শুনতেই বেশি পছন্দ করে!! ভালোবাসতে পারছিনা জাতীয় কারণ বললে উকিলসাহেব ধমক দিয়ে বলবে- আতলামি বন্ধ করেন মিয়া,কোর্ট আতলামি করার জায়গা না!! আসল কারণ বলেন- আপনার স্বামী কি বহুগামী??আপনি নিজে কি অন্য পুরুষের প্রতি আসক্ত??

ভালোবাসার শব্দের সলিড রেইপ করে ছেড়ে দিবেন উকিল সাহেব!!

অথচ ভালোবাসা শব্দের কোনো স্থান কাবিননামা কিংবা ডিভোর্স লেটারের কোথাও লেখা না থাকলেও,অফিস, আদালত,সমাজ এর মূল্যায়ন না করলেও পৃথিবীর সব কিছুর চালিকা শক্তি কিন্তু এটাই!! এমনকি খবর নিলে দেখা যাবে ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রেসিডেন্ট হয়ে ওঠার পেছনেও ওর একাধিক গার্লফ্রেন্ডের ভূমিকাই মুখ্য!!

তবে এই যে অদ্ভুত ভালোবাসাহীনতায় ভোগা বিষয়টা সেটা একদিনে তৈরী হয়না!! তুমুল ভালোবাসা একটু একটু একটু করে আমাদেরই কারণে আমাদেরই চোখের সামনে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করে!! কারণ বিয়ে হবার সাথে সাথেই আমরা আমাদের পার্টনারকে কে “ফর গ্র্যান্টেড” ধরে নেই!!

আমরা অতিক্ষুদ্র কিন্তু অমূল্য ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ গুলো করা কমিয়ে দেই!! জীবনটাকে,পার্থিব চাহিদা দিয়ে এতটাই ভরিয়ে ফেলি যে ভালোবাসা সাফোকেটেড ফিল করতে শুরু করে!! আমাদের ডিজায়ারগুলো তখন গৌণ হয়ে যায় তারবদলে ওয়ান্ট গুলো মুখ্য হতে থাকে জীবনে!!

বিয়ের আগে বিয়ে করাটার অন্যতম কারণ থাকে ভালোবাসার মানুষটাকে নিজের করে পাওয়া!! যেন একছাদের তলায় তার সাথে বসবাস করতে পারলেই জীবন স্বার্থক!!

অথচ বিয়ের পরে,ফার্নিচার,টিভি,ফ্রিজ,শাড়ী,গয়না,নরম হয়ে যাওয়া ভাত,নুন বেশি তরকারি,অপরিষ্কার ঘরদোরের ভিড়ে মানুষটাকেই হারিয়ে ফেলি আমরা!!

বিয়ের পরে কোন ভূতে ধরে আল্লাহই জানে!! নিজের করে পাওয়ার সাথে সাথে আমরা ভালোবাসার মানুষের এমনই রাফ ইউজ শুরু করি এতই অবমূল্যায়ন শুরু করি যে স্বামীগুলোকে টাকা ছাপানোর আর বৌ গুলাকে বাচ্চা উৎপাদনের মেশিন বানিয়ে ছাড়ি……….!!

আমরা ভুলে যাই,পৃথিবীর সমস্ত কাজ মেশিন দিয়ে করানো সম্ভব!!ভালোবাসানোটা ছাড়া……….
পূর্বপশ্চিম।।

এ বিভাগের আরও খবর