22 January 2017
g+ tw Chapaibarta Faceook Page
Chapaibarta.com
পাঁচ টাকার নতুন নোট কেমন দেখতে?

পাঁচ টাকার নতুন নোট কেমন দেখতে?

বার্তা ডেস্কঃ নতুন আঙ্গিকে পাঁচ টাকার নোট বাজারে ছাড়া হয়েছে। পাঁচ টাকা এতোদিন বাংলাদেশ ব্যাংকের মুদ্রা থাকলেও এক ও দুই টাকার পাশাপাশি পাঁচ টাকাও এখন সরকারি মুদ্রা। গত ৫ জানুয়ারি, বৃহষ্পতিবার অর্থবিভাগের সিনিয়র সচিব মাহবুব আহমেদের সই করা হালকা বেগুনি রঙের নতুন পাঁচ টাকার নোট বাজারে ছাড়া হয়েছে। এখন আইনানুগভাবে ১ পয়সা থেকে ৫ টাকা পর্যন্ত সরকারি মুদ্রা হিসেবে ব্যবহৃত হবে।

নোটের সামনের দিকে জাতীয় স্মৃতিসৌধ ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতি এবং পেছনের দিকে নওগাঁর কুসুম্বা মসজিদের ছবি ব্যবহার করা হয়েছে। নোটের পেছনের অংশে ডানদিকে বাংলাদেশের জাতীয় প্রতীক রয়েছে। এছাড়া নোটের আকার, ডিজাইন ও নিরাপত্তা বৈশিষ্ট্য প্রচলিত নোটের অনুরূপ রাখা হয়েছে।

২০১৫ সালের ২১ নভেম্বর রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ পাঁচ টাকাকে ব্যাংক নোট থেকে সরকারি নোটে রূপান্তরের প্রস্তাবে সম্মতি দেন। তাই নতুন নোটে 'বাংলাদেশ ব্যাংক' এবং 'চাহিবামাত্র ইহার বাহককে দিতে বাধ্য থাকবে' লেখা নেই। নোটের উভয় পিঠের উপরের অংশে শুধু 'গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার' লেখা রয়েছে।

সারা বিশ্বে ব্যাংক মুদ্রা এ সরকারি মুদ্রা, এই দুই মানের মুদ্রার প্রচলন রয়েছে। বাংলাদেশে এখন ১, ৫, ১০, ২৫, ৫০ পয়সার ধাতবমুদ্রা অচল পয়সা হিসেবে পরিচিত। কিন্তু সরকার এসব মুদ্রা বাতিল করেনি। ১ টাকার ধাতবমুদ্রা ও নোটও প্রায় বিলুপ্তির পথে। আর রয়েছে ২ টাকার মুদ্রা ও নোট।

ব্যাংক মুদ্রার মধ্যে বর্তমানে বাজারে রয়েছে ১০, ২০, ৫০, ১০০, ৫০০ ও ১০০০ টাকা মূল্যমানের নোট। এগুলো বাংলাদেশ ব্যাংক বের করে। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পাঁচ টাকার যে ধাতব মুদ্রা ও নোটগুলো বাজারে বর্তমানে চালু রয়েছে, সেগুলো এখন সরকারি মুদ্রা হিসেবে বিবেচিত হবে।

উল্লেখ্য, দেশে ‌১৯৭২ সালের চার মার্চ সর্বপ্রথম পাঁচ টাকার নোট ইস্যু হয়। এরপর ১৯৭৩ সালে এবং ১৯৭৪ সালে 'বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান' এর ছবি ব্যবহার করে আরো দুটি পাঁচ টাকার নোট ইস্যু করা হয়। এরপর নানা আঙ্গিকে পরিবর্তন এনে সর্বমোট আটবার পরিবর্তন করা হয় পাঁচ টাকার নোটের ডিজাইন। নবমবারের এই সংস্করণে পাঁচ টাকার নোটকে সরকারি করা হলো।২৪লাইভনিউজপেপার।।

এ বিভাগের আরও খবর