জাতির আলোকবর্তিকা হয়ে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন

  • Date: May 16, 2018
  • cat
  • | Post By: চাঁপাই বার্তা.কম (M)

ডা. সাইফ জামান আনন্দঃ ১৯৭৫ এর এক ঘন আধারে জাতির জনককে সপরিবারে হত্যার মধ্য দিয়ে শুরু হয় ক্ষমতার জিঘাংসা। বিদেশে অবস্থানরত বঙ্গবন্ধু কন্যা পাহাড়সম বেদনা বুকে নিয়ে দীর্ঘ ছয় বছর নির্বাসনে রইলেন। ১৯৮১ সালে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সম্মেলনে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার অনুপস্থিতেতেই দলের সভানেত্রী নির্বাচিত করা হয় জননেত্রী শেখ হাসিনাকে।

অনেক বাঁধা-বিপত্তির মধ্যে সে বছরেরই ১৭ মে জননেত্রী শেখ হাসিনা ঢাকায় ফিরে আসার সিদ্ধান্ত নেন। সে এক উত্তেজনাকর আবেগময় ঘটনা। বঙ্গবন্ধু কন্যাকে দেশে নিয়ে যাওয়ার জন্য দলের পক্ষ থেকে দিল্লী এলেন আবদুস সামাদ আজাদ ও এম কোরবান আলী। তার আগে দেখা করে গেছেন সভাপতি মণ্ডলীর অন্যান্য সকল সদস্য। ১৬ মে এয়ার ইন্ডিয়ার একটি বিমানে দিল্লী থেকে কলকাতা এলেন শেখ হাসিনা, কন্যা পুতুল এবং আবদুস সামাদ আজাদ ও এম কোরবান আলী। ১৭ মে বিকেলে ঢাকায় বিমান থেকে নামেন শেখ হাসিনা। বঙ্গবন্ধু বিহীন বাংলাদেশে নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এই প্রথম এলেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, মা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, তিন ভাই শেখ কামাল, শেখ জামাল, শেখ রাসেল সহ পরিবারের অধিকাংশ সদস্যই আর জীবিত নেই। ১৯৭৫ সালে ১৫ আগস্ট ঘাতক খুনীদের উন্মত্ততায় নিহত হলেন তারা সবাই। ৩২ নং সড়কের সেই বাড়িটি এখন এক মৃত্যুপুরী। জেনারেল জিয়ার সরকার বাড়িটিতে তালা মেরে পুরো বাঙালী জাতিকে শৃঙ্খলিত করতে চেয়েছিল।

১৯৮১ সালের ১৭ মে- সেদিন আকাশে ছিল মেঘ, ছিল মুষলধারে বৃষ্টি। প্রকৃতি যেন শোকের চাদর গায়ে মলিন বদনে শেখ হাসিনার জন্য প্রতীক্ষা করছিল। বিমান থেকে নামার পর শুরু হলো অঝোর ধারার বৃষ্টি যেন শেখ হাসিনার অশ্রু জল হয়ে ভরিয়ে দিল বাংলার প্রতিটি প্রান্তর। লাখ লাখ বঙ্গবন্ধু প্রেমির স্লোগানের মাঝে তিনি খুঁজে ফেরেন স্বজনের মুখ। আবেগজড়িত কণ্ঠে চিৎকার করে বলেন, ‘আমি বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার চাই’। মুহূর্তের মধ্যে সে ধ্বনি প্রকম্পিত হয়ে ছড়িয়ে পড়ল বাংলার প্রতিটি প্রান্তরে। বিমানবন্দর থেকে সংবর্ধনাস্থল মানিক মিয়া এ্যাভিনিউ পর্যন্ত পুরো রাস্তা ছিল লোকে লোকারণ্য। ১০-১৫ লাখ লোকের সমাগম হয়েছিল সে সংবর্ধনায়।

এরপর শেখ হাসিনার শুরু হলো এক নতুন জীবন। দলকে পুনর্গঠন আর গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়লেন গণতন্ত্রের মানসকন্যা। এরপর একে একে তাঁর হাত ধরে রচিত হয়েছে গৌরবময় সব ইতিহাস। ৭৫ পরবর্তী সময়ে সামরিক সরকার এবং স্বৈরশাসনের জাঁতাকলে পিষ্ঠ মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি বাংলাদেশ আওয়ামীলীগকে তৃণমূল থেকে পুনরুজ্জীবিত করলেন। এর পরপরই স্বৈরাচারের হাত থেকে বাংলাদেশকে মুক্ত করে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় নেতৃত্ব দিলেন। মহান মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার চেতনাকে পুনঃপ্রতিষ্ঠিত করে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে সরকার গঠন করলেন। এতোদিনের জমে থাকা কলঙ্ক মুছতে জাতির পিতা হত্যার বিচার করলেন। এদেশের পবিত্র ভূমিতে বসে ৭১ এ চালানো গণহত্যা এবং মানবতা বিরোধী অপরাধের সাথে জড়িত সকল রাঘব বোয়ালের বিচারকে সম্ভব করলেন শক্ত হাতে। এরমাঝে অসংখ্যবার হত্যা চেষ্টা কিংবা সেনা সমর্থিত সরকার কর্তৃক মাইনাস ফরমূলা কোনো কিছুই তাঁকে টলাতে পারেনি। বাঙালি জাতির জন্ম থেকে বিরোধিতা এবং চক্রান্তকারী সকল অপশক্তির বিষদাঁত ভেঙ্গে দিয়ে তিনি এগিয়ে চললেন বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মানে। ক্ষুধা ও দারিদ্র্য মুক্ত বাংলাদেশ এমডিজি লক্ষ্যমাত্রার সবগুলো নির্ধারিত সময়ের আগেই পূরণ করলো। আধুনিক তথ্য প্রযুক্তি নির্ভর পৃথিবীর সাথে তাল মিলিয়ে গড়ে উঠলো স্বনির্ভর ডিজিটাল বাংলাদেশ। মাথাপিছু জিডিপির পরিমাণ লক্ষ্যমাত্রা ৭ অতিক্রম করলো। তৃতীয় বিশ্বের পিছিয়ে পড়া এক দেশ থেকে অতি দ্রুত উন্নত বিশ্বের কাতারে লিখালেন বাংলাদেশের নাম। বৈশ্বিক রাজনীতিতেও তাঁর বিচক্ষণ নেতৃত্বে সমাধান হলো দীর্ঘদিনের ছীটমহল সমস্যা। বাংলাদেশ লাভ করলো বিস্তৃর্ণ জলসীমা। রোহিঙ্গা ইস্যুতে তাঁর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা প্রশংসিত হলো সারাবিশ্বে। পৃথিবী ব্যাপী তিনি পরিচিত হলেন মানবতার জননী রূপে। সর্বশেষ মহাকাশে উড়লো বাংলাদেশের প্রথম কৃত্তিম স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১। এরমাঝেও হাজারো ছোট-বড় অর্জনের কথা নাইবা উল্লেখ করলাম।

বাংলাদেশকে এতো এতো মাইলফলকের সামনে যে মানুষটি নিয়ে আসলেন সে মানুষটির দেশে ফিরে আসার দিনে লক্ষ লক্ষ জনতা রাজপথে বরণ করে নিয়েছিলেন। আলোকবর্তিকা হাতে জাতির সবটুকু আশা তিনি মিটিয়ে দিয়েছেন। দেশরত্ন শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে নেত্রীর একজন ক্ষুদ্র কর্মী হিসেবে অত্যন্ত গর্ববোধ করি এবং আজীবন তাঁর আদর্শে এগিয়ে যেতে চাই।

লেখকঃ

*ডা. সাইফ জামান আনন্দ
সাধারণ সম্পাদক
বাংলাদেশ ছাত্রলীগ
চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা শাখা

*সাবেক সহ-সভাপতি ও সাবেক স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক
বাংলাদেশ ছাত্রলীগ
চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা শাখা

*সাবেক সভাপতি
বাংলাদেশ ছাত্রলীগ
বারিন্দ মেডিকেল কলেজ শাখা

এই বিভাগের সর্বশেষ খবর